প্রধানমন্ত্রীকে জো বাইডেনের চিঠি, আরও হতাশ বিএনপি

0
312
প্রধানমন্ত্রী

দায়িত্ব গ্রহণের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের সঙ্গে আরও দৃঢ়ভাবে কাজ করার প্রত্যয় জানিয়ে চিঠি প্রদান করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। এই চিঠি প্রদানের মাধ্যমে বাংলাদেশের ওপর মার্কিন আগ্রাসনের যেই কথা বলে আসছিলো বিএনপি, সেখানেও সম্পূর্ণ ব্যর্থ হওয়ার বিষয়টি আরও একবার স্পষ্ট করেছে মার্কিন প্রশাসন। ঢাকাস্থ মার্কিন দূতাবাসের পক্ষ থেকে জো বাইডেনের এই চিঠির পর তাই আরও হতাশ বিএনপি ও তার দলের নেতাকর্মীরা।

‘নির্বাচন সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ হবে না’- এমন দাবি তুলে নির্বাচন বর্জন করে বিএনপি। সেই সঙ্গে তার সঙ্গে থাকা দলগুলোকেও নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে দেয়নি বিএনপি। তাদের দাবি, জনগণ ভোট দিতে যাবে না। ফলে এই সরকারের পতন এবং নতুন করে নির্বাচনের ডাক দেয়ার কথা ঘোষণা করে এসেছে দলটি। দলটির পক্ষ থেকে লবিস্ট হিসেবে কাজ করা মার্কিন দূতাবাসের সাবেক কর্মকর্তারাও টুইটারে এমন বার্তাই প্রদান করে নির্বাচনের আগ থেকে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত বিএনপির সহিংসতা ও ভয়-ভীতি প্রদর্শনের পরও প্রায় ৪২ শতাংশ ভোটার উপস্থিতি তাদের মুখে কুলুপ এঁটে দেয় নির্বাচনের দিন। কিন্তু এরপর ভোটার উপস্থিতির সংখ্যা নিয়ে গুজব ও ভিত্তিহীন তথ্য উপস্থাপন শুরু করে দলটি। এর পাশাপাশি জানায় পশ্চিমা কোন দেশ এই নির্বাচন ও বিজয়ী সরকারকে সমর্থন দেবে না।

শেখ-হাসিনা-720x375কিন্তু দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে ২২৩টি আসন পেয়ে সংসদে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করা আওয়ামী লীগ ও তার সভাপতি শেখ হাসিনাকে অনেকেই শুভেচ্ছা জানিয়ে বার্তা প্রদান করেন। এ সময় বিএনপি পুনরায় নির্বাচনের যেই দাবি উত্থাপন করে, সেখানেও কোন সমর্থন ছিলো না পশ্চিমা দেশগুলোর। বরং বিএনপির এমন দাবি প্রত্যাখ্যান করে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় বিজয়ী আওয়ামী লীগ সরকারের সঙ্গে কাজ করে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করে।

দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানায় ইউরোপের ফ্রান্স, ইতালি, সুইজারল্যান্ড সহ আরও বেশ কিছু দেশ। এর পাশাপাশি চীন, ভারত, রাশিয়াসহ বিভিন্ন দেশের পক্ষ থেকেও শুভেচ্ছা জানানো হয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে। নির্বাচনের আগে সরকারকে গণতন্ত্রের নামে বেকায়দায় ফেলতে চাওয়া যুক্তরাষ্ট্রও জানায়, তারা বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ করতে চায়। নতুন মন্ত্রীসভায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাছান মাহমুদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে এমনটি জানান ঢাকাস্থ মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার ডি হাস।

আরও পড়ুন : সকল দেশ ও সংস্থার স্টেটমেন্টে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী আওয়ামী লীগকে সমর্থন, বিচ্ছিন্ন বিএনপি

সর্বশেষ বিএনপির নতুন করে নির্বাচন দাবি করার বিষয়টি যে একেবারে অবাস্তব সেটিই বুঝিয়ে দিয়েছেন মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র ম্যাথু মিলার। ১৮ জানুয়ারি নিয়মিত সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ সরকারকে স্বীকৃতি না দেওয়ার ভাবনা নাকচ করেন তিনি। এক প্রশ্নের জবাবে মিলার বলেন, ‘নির্বাচনের সময় ও নির্বাচনের আগের মাসগুলোতে সহিংসতার নিন্দা জানাই আমরা। সহিংসতার বিষয়ে বিশ্বাসযোগ্য এবং স্বচ্ছ তদন্ত, এতে জড়িতদের জবাবদিহিতায় আনতে বাংলাদেশ সরকারকে আমরা উৎসাহিত করছি। একই সঙ্গে রাজনৈতিক সহিংসতা পরিহার করতে সব দলের প্রতি আহ্বান জানাই।’

এই আহ্বান নির্বাচনে বিজয়ী সরকারের কাছেই করা হয়েছে। ফলে স্পষ্ট যে যুক্তরাষ্ট্র বর্তমান সরকারকে মেনে নিয়ে তাদের পরিকল্পনা এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু তারপরও থামেনি বিএনপি এবং তার লবিস্টদের অপপ্রচার। যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতরের স্টেটমেন্টের পর থেকে বেশ হতাশ ছিলেন মুশফিক ফজল আনসারী, জন ড্যানিলভিজ সহ আরও অনেকে। তবে তাদের জন্য সবচাইতে বড় হতাশার কারণ হয়েছে জো বাইডেনের চিঠি।

আরও পড়ুন : Bangladesh’s Growing Importance in Global Politics

বিগত কয়েক সপ্তাহ জুড়ে বিএনপি ও তাদের সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের ফেসবুক পেজ, টুইটার ও ইউটিউব চ্যানেল থেকে দাবি করা হয়, বাংলাদেশের গার্মেন্টস সেক্টরের ওপর বড় আঘাত আসতে যাচ্ছে। কিন্তু তেমন কিছু দেখা যায়নি। এরপর তারা জানায়, বাংলাদেশের বর্তমান সরকারকে হুশিয়ারি জানিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট অচিরেই চিঠি দেবেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য বাইডেনের একটি চিঠি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এসেছে এমন তথ্য জানার পর তারা প্রচার করতে থাকে, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পালিয়ে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে’। অনেকেই মন্তব্য করেন জো বাইডেন এই সরকারকে স্বীকৃতি না দিয়ে কড়া বার্তায় চিঠি দিচ্ছেন।

US BDকিন্তু শেষ পর্যন্ত দেখা যায় চিঠিতে জো বাইডেন লিখেছেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র–বাংলাদেশ অংশীদারত্বের পরবর্তী অধ্যায় শুরুর পর্বে আমি বলতে চাই, আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক নিরাপত্তা, অর্থনৈতিক উন্নয়ন, জলবায়ু পরিবর্তন ও জ্বালানি, বৈশ্বিক স্বাস্থ্য, মানবিক সহায়তা, বিশেষ করে রোহিঙ্গা শরণার্থীসহ আরও অনেক ইস্যুতে আমাদের প্রশাসন একসঙ্গে কাজ করার ঐকান্তিক ইচ্ছা আমি তুলে ধরছি।’

আরও পড়ুন : তারেক রহমান যুক্তরাষ্ট্রের স্বার্থের জন্য ভয়ংকর ক্ষতিকর, গণতন্ত্রের হুমকি

জো বাইডেন লিখেছেন, ‘সমস্যা সমাধানে একসঙ্গে কাজ করার ক্ষেত্রে আমাদের দীর্ঘ ও সফল ইতিহাস রয়েছে। আর আমাদের এই সম্পর্কের ভিত্তি হচ্ছে দুই দেশের জনগণের শক্তিশালী সম্পর্ক।’

pm--bidenপ্রেসিডেন্ট জো বাইডেন তাঁর চিঠিতে বলেছেন, ‘বাংলাদেশের উচ্চাভিলাষী অর্থনৈতিক লক্ষ্য অর্জনে সমর্থন এবং একটি অবাধ ও মুক্ত ভারত–প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল প্রতিষ্ঠার অভিন্ন স্বপ্ন পূরণে বাংলাদেশের সঙ্গে অংশীদারত্ব প্রতিষ্ঠায় যুক্তরাষ্ট্র প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’

[প্রধানমন্ত্রীকে জো বাইডেনের চিঠি, আরও হতাশ বিএনপি]

প্রসঙ্গত, গত ৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হওয়া দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এককভাবে ২২৩টি আসনে জয় পেয়ে সরকার গঠন করেছে আওয়ামী লীগ। জাতীয় পার্টি পেয়েছে ১১ আসন। আর রেকর্ড ৬২টি আসনে জয়ী হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা।

আরও পড়ুন :

মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে